বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে টিকা কার্যক্রমের তৃতীয়

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) নতুন করে শুরু হওয়া টিকা কার্যক্রমের তৃতীয় দিনে টিকা নিতে এসে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয় সাধারণ মানুষকে। কয়েক ঘণ্টা অপেক্ষার পর টিকা পেলেও এ নিয়ে ক্ষোভ ঝেড়েছেন অনেকে।

এই হাসপাতালের টিকা কার্যক্রমের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপপরিচালক (হাসপাতাল) চিকিৎসক খোরশেদ আলম প্রথম আলোকে বলেছেন, ‘নতুন করে যাঁরা নিবন্ধন করেছেন এবং পূর্বে নিবন্ধন করেছেন কিন্তু টিকা পাননি, তাঁরা প্রথম ডোজ হিসেবে ফাইজারের টিকা পাচ্ছেন।
বিএসএমএমইউর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারের তৃতীয় তলায় ফাইজারের টিকা দেওয়া হচ্ছে। এই ভবনের নিচতলার দুটি বুথে সীমিত পরিমাণে অক্সফোর্ড-​অ্যাস্ট্রাজেনেকার (কোভিশিল্ড) দ্বিতীয় ডোজও দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন খোরশেদ আলম।

বেলা পৌনে ১১টার দিকে পুরান ঢাকার হোসনি দালান এলাকা থেকে টিকাকেন্দ্রে এসেছেন ফ্যাশন হাউস দর্জি বাড়ির জেনারেল ম্যানেজার শাহজাহান সিরাজ। দুপুর সোয়া ১২টা পর্যন্ত অপেক্ষা করেও ডাক পাচ্ছিলেন না। তিনি বলেন, ‘“ভিআইপিদের” জন্যই আমাদের এতক্ষণ অপেক্ষা করতে হলো। তাঁদের জন্য আলাদা বুথ থাকলে আর এ সমস্যা হতো না।’

স্বেচ্ছাসেবকের দায়িত্ব পালনকারী রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির টিম লিডার এ কে এম নাজমুল শাহাদাৎ বলেন, নিবন্ধন করেছেন কিন্তু মোবাইলে বার্তা পাননি এমন ‘ভিআইপি’ ব্যক্তিরা এলে আমরা তাঁদের অপেক্ষা না করিয়েই টিকাদানের ব্যবস্থা করছি। তবে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত কতজন ‘ভিআইপি’ টিকা নিয়েছেন তা জানাতে পারেননি তিনি।
সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২ টা ৩৫ মিনিট পর্যন্ত টিকাকেন্দ্রটির রেজিস্ট্রেশন বুথের সামনে প্রচণ্ড ভিড় দেখা গেছে। স্বেচ্ছাসেবকদের হিমশিম খেতে হয়েছে টিকা গ্রহীতা এবং তাঁদের সঙ্গে আসা আত্মীয়স্বজনকে সামলাতে। অবশ্য সিরিয়াল দেওয়া শেষে পাশের কক্ষে শারীরিক দূরত্ব রেখে টিকা গ্রহীতাদের অপেক্ষা করতে দেখা গেছে।

স্বেচ্ছাসেবক টিম লিডার নাজমুল শাহাদাৎ বলেন, ‘আমরা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে কেন্দ্রের সামনে কয়েকটি বুথ রাখার কথা বলেছিলাম। কিন্তু তা করা হয়নি। ফলে আগত ব্যক্তিরা শারীরিক দূরত্ব না মেনে ভিড় করছেন। আমাদের ২৬ জন স্বেচ্ছাসেবক কাজ করছেন। কিন্তু ভিড় সামলানো যাচ্ছে না।’

নিজের বাবাকে নিয়ে পান্থপথ থেকে এসেছেন বিন্তু পোদ্দার। তিনি অভিযোগ করেন, হ্যান্ড স্যানিটাইজারসহ অন্যান্য সুরক্ষামূলক ব্যবস্থা রাখা হয়নি কেন্দ্রটিতে। একই সঙ্গে ভিআইপিদের জন্য পৃথক বুথ না থাকায় বেশি সময় অপেক্ষা করতে হচ্ছে বলেও অভিযোগ তাঁর।

বিএসএমএমইউর পরিচালক (হাসপাতাল) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নজরুল ইসলাম টেলিফোনে জানান, ‘ভিড় এড়ানোর জন্য আমরা কেন্দ্রের ভেতরের ছবি তোলার অনুমতি দিচ্ছি না।’

প্রকাশনায় :-

মো: জাহাঙ্গীর আলম

যোগাযোগ:ফোন নাম্বার-০১৭১৭৩৭৮৪৮০ ইমেল:-jahangirnews1@gmail.com-dailynangalkot@gmail.com